ই-কমার্স নিয়ে কিছু কথা

ই-কমার্স নিয়ে কিছু কথা

কিভাবে এত্ত লস/ ডিসকাউন্ট দিয়ে ব্যবসা করে?
আপনি যেন বড় হয়ে চাকুরী বা ব্যবসা করতে পারেন সেজন্য ১৬-১৮ বছর পরতে হয়। বাড়িভাড়া পেতে হলে আগে টাকা খরচ করে বাড়ি করতে হয়। পণ্য উৎপাদন করার জন্য কোটি কোটি টাকা খরচ করে আগে কারখানা করতে হয়। এগুলো লস না, এগুলো কে বলে ইনভেস্ট/ বিনিয়োগ। যা ভবিষ্যৎ লাভের কাঠামো।

ব্যবসাটা কিভাবে হয়?
ই-কমার্সে অন্য ব্যবসার মত ফ্যাক্টরি, হেড অফিস, ব্রাঞ্চ অফিস এবং অনেক কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়ে শুরু করতে টাকা বিনিয়োগ হয় না। বিনিয়োগ হয় কাস্টমার বিল্ড করতে কেননা কাস্টমারই ই-কমার্সের বেস বা মূল। “ই’ – মানে “ইন্টারনেট বা ইলেকট্রনিক”, মানেই হল ভার্চুয়্যাল বা অদৃশ্য। তাই বিনিয়োগও হয় অদৃশ্য। আপনার – আমার পেছনে, কিন্তু আমরা দেখতে পাই না।

আরো বিস্তারিত

ব্যবসা আরো অনেক ভাবে হয় যেমনঃ

  • কিছু পণ্য দিয়ে লস করছে, অন্য পণ্য দিয়ে লাভ করে কিছুটা এডজাস্ট হয়, বাকিটা বিনিয়োগ। এই বিনিয়োগটা সাময়িক। যখন কাস্টমার একটা সাইটের উপর ভরসা করতে শুরু করে তখন আস্তে আস্তে ডিস্কাউন্ট কমতে থাকে বা বেশি কাস্টমারের কাছে বেশি বিক্রি করে প্রফিট করা হয়। যেমনঃ ফুডপান্ডা, চালডাল, দারাজ।
  • ই-কমার্স সাইট মানেই ডাটা বেইজ সেন্টার। যে ই-কমার্সের কাস্টমার বেইজ যত বেশি তার ডাটা ভ্যালু তত বেশি এবং এই ডাটাও অনেক সময় ট্রেড হয় যেমন আপনার মোবাইল নাম্বার বা ইমেইল। বাজারে ডাটার অনেক ক্রেতা থাকে এবং একই ডাটা অনেকের কাছে বিক্রি করা যায়। লক্ষ্য করে দেখবেন ই-কমার্সে কেনা-কাটার পরে আপনার মোবাইলে প্রমোশনাল মেসেজ আসা বেরেছে।
  • ফরেন ইনভেস্ট আসে সাইটের কাস্টমার বেইজের স্ট্রেংথ দেখে আর এই ফান্ডগুলো আসে অনেক অল্প ইন্টারেস্টে তাই একবার যদি ই-কমার্স ভালো করা শুরু করে তখন আর পেছনে তাকাতে হয় না। যেমনঃ দারাজের গ্লোবাল কোলাবোরেশন।

কাস্টমারের করনীয় এবং সুবিধা নিয়ে কিছু কথা?

আপনি বাসার নিচের যে দোকান থেকে রেগুলার কেনা-কাটা করেন সেই দোকানদার যেমন আপনার থেকে সব কিছুর দাম কম রাখে বা আপনাকে বাকি দিয়ে বাড়তি সুবিধা দেয়… তেমনি ই-কমার্স সাইট থেকে সুবিধা নেয়ার কিছু উপায়ঃ

  • রেগুলার কেনা-কাটা করুন। অন্যকে উৎসাহিত করুন। যেমন আপনার প্রতিবেশিকে বলেন রাফি মামার বার্গার কেন ভালো বা বাতাস চাচার ফুসকা কত্ত মজা!
  • রিভিউ দিন। রিভিউ দেয়া অনেক অনেক জরুরী যদি আপনি বাড়তি সুবিধা চান। রিভিউ হল তাদের প্রচার আর আপনি তাদের প্রচারে সাহায্য করলেই আপনাকে তারা বাড়তি কিছু দিতে চেষ্টা করবে। প্রশ্ন আসতে পারে তারা কিভাবে বুঝবে? চেষ্টা করবেন যে মোবাইল বা লেপটপ থেকে অর্ডার করছেন সেই ডিভাইস থেকেই রিভিউ দেয়ার – কেননা আপনার ডিভাইসের আই পি সবসময় ইউনিক হয় এবং বেশিরভাগ ই-কমার্স আই পি ট্র্যাক করে।
  • বাড়তি সুবিধাগুলো যেমন হয় – মাঝে মাঝে ডিসকাউন্ট কোড পাবেন, ফ্রী গিফট পাবেন বা হয়তো প্রায়োরিটি / ফাস্ট ডেলিভারি পাবেন।

এই কথা গুলো সবাই জানেন। তারপরও ভাবলাম শেয়ার করি।

আজ থেকে রিভিউ দেয়া বাড়িয়ে দিন কেননা ই-কমার্স ছাড়া আমাদেরও চলবে না আর কাস্টমার ছাড়া ই-কমার্স চলবে না। চলুন একে অন্যের হাত ধরে এগিয়ে যাই!

Writer: Ray Omit

Rate this post
%d bloggers like this: