ইভ্যালির ব্র্যান্ড ভ্যালু ৫ হাজার কোটি টাকা

ইভ্যালির ব্র্যান্ড ভ্যালু ৫ হাজার কোটি টাকা

    বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এক চিঠির জবাবে ইভ্যালির ব্র্যান্ড ভ্যালু ‘৫ হাজার কোটি’ টাকা উল্লেখ করা হয়।

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, ‘আন্তর্জাতিক মান অনুযায়ী ও সাম্প্রতিক সময়ে পার্শ্ববর্তী দেশগুলোর একই ধরনের ব্যবসায়ের মূল্যায়নের প্রেক্ষিতে বর্তমানে ইভ্যালির ন্যূনতম ব্যান্ড ভ্যালু ৫ হাজার কোটি টাকা হয়।’

চিঠিতে নিজেদের সম্পদ ও দায়ের বিষয়ে জানিয়েছে কোম্পানিটি।

চিঠিতে কোম্পানিটি উল্লেখ করেন, কোম্পানির সম্পদ বিবরণীতে Intangible Asset এ কোম্পানির ব্র্যান্ড ভ্যালু আকার প্রায় ৪২২ কোটি টাকার মতো দেখানো হয়েছে। বর্তমানে ইভ্যালিতে ই-কমার্স ছাড়াও আরও বেশ কিছু সফল ডিজিটাল প্লার্টফর্ম যেমন, ইফুড, ইজবস, ইবাজার, ইহেলথ, ফ্লাইট এক্সপার্ট ইভ্যালিতে অন্তর্ভূক্ত হয়েছে যা কোম্পানির ব্র্যান্ড ভ্যালুকে আরও সমৃদ্ধ করেছে।

আরো উল্লেখ করা হয়, আন্তর্জাতিক মান অনুযায়ী ও সাম্প্রতিক সময়ে পার্শ্ববর্তী দেশ সমূহের একই ধরনের ব্যবসায়ের মূল্যায়নের প্রেক্ষিতে বর্তমানে ইভ্যালির ন্যূনতম ব্যান্ড ভ্যালু ৫,০০০ (পাঁচ হাজার) কোটি টাকা হয়।’ 

তবে তৃতীয় নিরপেক্ষ নিরীক্ষক দিয়ে ব্র্যান্ড ভ্যালু যাচাইয়ের ‍সুযোগ পায়নি বলে চিঠিতে শুধুমাত্র কোম্পানির ব্যায়ের সমপরিমাণ অংশটুকু বিবেচনা করা হয়েছে।

ডাব্লিউটিও সেলের মহাপরিচালক টেকশহর ডটকমকে জানান, ‘বিভিন্ন কোয়েরি ও তথ্যউপাত্ত নিয়ে উদ্ভুত বিষয়গুলো কীভাবে সুন্দর সমাধান করা যায়, সেই বিষয়গুলোই আমরা দেখছি’

ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রাসেল জানান, বাংলাদেশে ইকমার্স শিল্পের জন্য সর্বোত্তম পরিবেশ তৈরিতে সরকারের গৃহীত পদক্ষেপের আমরা সবসময় প্রশংসা করি।

দেনা-পাওনার হিসাব দিতে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালিকে তিন সপ্তাহ সময় দেওয়া হয়েছে। বুধবার (১১ আগস্ট) বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এর আগে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের জানতে চাওয়া ছয়টি প্রশ্নের উত্তর দিতে আরও ছয় মাস সময় চায় ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালি। সোমবার (২ আগস্ট) বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও ইভ্যালির পক্ষ থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

তিন সপ্তাহ সময়ের বিভাজন করা হয়েছে আবার তিনভাবে। যেমন, ক্রেতাদের কাছে ইভ্যালির দায় কত, তা জানাতে হবে সাত দিনের মধ্যে; মার্চেন্টদের কাছে দায় কত, তা জানাতে হবে তিন সপ্তাহের মধ্যে; আর সম্পদ ও দায় কত আছে, তা জানাতে হবে তিন থেকে পাঁচ দিনের মধ্যে।

Read More: ইভ্যালিকে দেনা-পাওনার হিসাব দিতে সময় দেওয়া হয়েছে

আজ চিঠির মাধ্যমে নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের প্রথম চিঠির জবাব দিয়েছে ইভ্যালি।

চিঠিতে ইভ্যালি আরো উল্লেখ করেন,  গ্রাহকদের কাছ থেকে অগ্রিম, সরবরাহকারীদের কাছে দেনা, ব্যাবসায়িক ব্যয় সংক্রান্ত দেনা সহ অন্যান্য সকল দেনা বাবদ মোট চলতি দায় এর পরিমান প্রায় ৫ শত ৪৩ কোটি টাকা। শুধুমাত্র বিগত এক মাসে প্রায় ২ লক্ষ ৭৪ হাজার পুরাতন অডার সফলভাবে ডেলিভারি সম্পন্ন করা হয়েছে। 

4/5 - (3 votes)